আপনার সোনামণির স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ফার্স্ট এড বক্সে যা যা রাখবেন

আপনার সোনামণির স্বাস্থ্য সুরক্ষায় আপনি অনেক সচেতন। খাবারের আগে হাত ধোয়া, ওয়াশ রুম থেকে ফেরার পর সাবান দিয়ে হাত ধোয়া। আপনার সোনামণির খাবারের প্লেট স্বাস্থ্যকর জায়গায় রাখা সহ কতো কি না করেন। কিন্তু হটাত তার হাত কিংবা পা কেটে গেলে কি করেন? হয়তোবা ডাক্তারের কাছে ছুতেন।

কিন্তু আপনি জানেন যে, বিপদ কখনও বলে আসে না। আর বাড়িতে খুদে সদস্য থাকলে তো আরও বেশি করে সতর্ক হতে হয়। কখন সে পড়ে যায়, হাত-পা ছড়ে যায় কিংবা বমি-পেটখারাপ লেগে থাকতেই পারে। তাই বাড়িতে ফার্স্ট এড কিট রাখা অত্যন্ত জরুরি। কিন্তু কী কী রাখবেন সেখানে? বাক্সে যা যা জিনিস থাকে, তাকে ক’টি ভাগে ভাগ করে নিন।

জ্বর, পেটখারাপ, বমির মতো সাধারণ ওষুধ অবশ্যই রাখুন। সঙ্গে থাক আর্নিকা। হঠাৎ করে পড়ে ব্যথা পেলে, কালশিটে পড়লে, এটি ভাল কাজ দেয়। এ ছাড়া থাক অ্যান্টি-বায়োটিক লোশন বা অয়েন্টমেন্ট। হঠাৎ পোকার কামড় থেকে জ্বালা-পোড়া অনুভূত হলে, তার জন্য কাজে দেবে।

শিশুর জন্য চিকিৎসক যদি বিশেষ কোনও ওষুধ দিয়ে থাকেন, তা-ও বাক্সে রাখা বাঞ্ছনীয়। একদম খুদে শিশু পেটব্যথায় কান্নাকাটি করলে, চিকিৎসক অনেক সময়ে গ্রাইপ ওয়াটার দেওয়ার পরামর্শ দেন। সেটি রাখুন।

আবার ওআরএস সলিউশন পাউডার, হজমের ওষুধও রাখতে পারেন। কাটা জায়গা পরিষ্কার করার জন্য ফার্স্ট এড কিটে থাক অ্যান্টি-সেপটিক লিকুইড। জরুরি হ্যান্ড স্যানিটাইজ়ারও।

আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র

ছোট, বড়, গোল… নানা আকারের ব্যান্ড এড রাখুন। অনেক সময়ে অ্যান্টি-সেপটিক প্যাড রাখলেও কাজে দেয়। তুলো, স্টেরাইল গজ, ব্যান্ডেজ, লিউকোপ্লাস্ট বা মেডিক্যাল টেপও রাখুন।

টুকিটাকি

এ সব ছাড়াও কাঁচি, থার্মোমিটার, টুইজ়ার, পেপার নাইফ, স্টেরাইল গ্লাভস রাখুন সেই বাক্সে।

দুর্ঘটনা ঘটার পরে দ্রুত প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করতে ফার্স্ট এড বক্স রাখুন হাতের নাগালেই। তার আগে হাত স্যানিটাইজ় করতে ভুলবেন না।

তথ্যসূত্রঃ আনন্দবাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *