রাতের পর রাত না ঘুমিয়ে থাকা মেয়েদের ওজন বাড়ে দিগুন, বলছে সমীক্ষা

কর্ম বেস্ত দিন পার করার পর আপনার দরকার একটি শান্তির ঘুম। একটি ভাল ঘুম আপনার সারাদিনের ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করে। ছেঁড়া ছেঁড়া ঘুম, রাতের পর রাত না ঘুমিয়ে থাকা ইত্যাদি সমস্যায় আছেন কি?‌

সমীক্ষা বলছে এই সমস্যা পুরুষদের থেকে বেশি মহিলাদের হয়, কারণ তাঁরা বাচ্চা এবং পুরো সংসারের দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে এগিয়ে চলেন। এখন এই ঘুমের সমস্যায় সাধারণত শুনলে মনে হতেই পারে একটি মাত্র সমস্যা, আসলে তা নয়। সমস্যা কিন্তু দু’‌রকমের।

এক তো ঘুম হয় না, দ্বিতীয়ত এসময়ে ভীষণভাবে মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছে বেড়ে যায়। মোট ৪৯৫ জন মহিলার উপরে এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে। নিউইয়র্কের কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ‌এই গবেষণা চালিয়ে দেখা যায়, যাঁদের ঘুমের সমস্যা রয়েছে, তাঁরা মাঝরাতে ফ্যাট জাতীয় খাবার, মিষ্টি জাতীয় খাবার বেশি খাচ্ছেন।

তাঁদের হার্টের সমস্যা, মোটা হয়ে যাওয়ার সমস্যা, টাইপ টু ডায়াবেটিসের সমস্যায় বেশি ভুগতে হচ্ছে। গবেষক ব্রুক আগরওয়াল বলছেন, ‘‌‌একে তো মহিলাদের সংসার, সন্তানের দায়িত্ব নিতে হয়, উপরন্তু তাঁদের মেনোপজের সময়ে ‌হরমোনের পরিবর্তনে সমস্যা বাড়ে।

সব মিলিয়ে তাঁদের রাতের ঘুমে প্রভাব পড়ে।’‌অ্যামেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ২০ থেকে ৭৬ বছর বয়সী মহিলাদের মধ্যে পরীক্ষা চালিয়ে দেখা গেছে, যাঁদের রোজ রাতে এক ঘণ্টারও বেশি সময় লাগে ঘুম আসতে, তাঁদের বাকিদের তুলনায় ৪২৬ ক্যালোরি বেশি খাবার খাওয়ার প্রবণতা রয়েছে প্রতিদিন। অথচ যাঁরা মিনিট পনেরোর মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন, তাঁদের এই সমস্যা নেই।

এই গবেষণা আরও বলছে, যে মহিলারা ইনসমনিয়া বা অনিদ্রা রোগে ভোগেন তাঁরা বাকিদের চেয়ে ২০৫ ক্যালোরি বেশি খাবার খেয়ে থাকেন। স্বাভাবিকভাবেই তাঁদের ওজনও বেড়ে যায় বাকিদের চেয়ে বেশি।
কাজেই রাতে ঘুমোনোর দিকে বিশেষভাবে নজর দিতেই হবে আপনাকে।

তথ্যসূত্রঃ আজকাল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *