৭ দিনে চুল লম্বা করার ঘরোয়া কিছু টিপস

সঠিক যত্নে চুল বড় হওয়া সম্ভব। আর এরজন্য রয়েছে প্রতিষ্ঠিত কিছু উপায়। রূপচর্চাবিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এই বিষয়ের উপর প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে চুল লম্বা করার কয়েকটি পন্থা এখানে দেওয়া হল।

শুকনা মাথার ত্বকে মালিশ করুন

চুল ভালো রাখার জন্য মালিশের চেয়ে ভালো আর কিছু নেই। এটা মাথার ত্বকে রক্ত চলাচল বাড়ায় যা চুলের ফলিকলে পুষ্টি উপাদান পৌঁছে দিতে সাহায্য করে। মাথার ত্বকে কেবল আঙুল দিয়ে মালিশ করুন। এটা মাথার ত্বক সুস্থ রাখে ও দ্রুত চুল বড় করতে সাহায্য করে।

ভেজা চুল মালিশ করা

গোসলের সময় মাথা মালিশ করার মাধ্যমে দিন শুরু করুন। গোসলের সময় মাথার ত্বকে আঙুল বুলিয়ে মালিশ করুন। ভালো ফলাফলের জন্য ঘাড়ের পেছন থেকে চুলের লাইন অনুযায়ী সামনের দিকে মালিশ করা শুরু করুন।

আগা ছাঁটুন

চুলের আগা শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যাওয়ার পরেও আগা ছাঁটতে চান না। যার মূল কারণ হল চুল ছোট হয়ে যাওয়া। তবে সত্যি যদি আপনি চুল বড় করতে চান তাহলে আগা ছাঁটুন। প্রতি ছয় থেকে আট সপ্তাহ পরপর চুলের আগা ছাঁটলে চুল দ্রুত বড় হবে।

যথার্থ সম্পূরক গ্রহণ করা

চুলের জন্য প্রয়োজনীয় সঠিক পুষ্টি সম্পর্কে অনেকেরই সঠিক ধারণা নেই। চুল ভালো রাখার জন্য সঠিক ভিটামিন বেছে নেওয়াও গুরুত্বপূর্ণ। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ভিটামিন বি চুল শক্তিশালী রাখে। এবং যে সকল সম্পূরকে বায়োটিন থাকে তা চুলকে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল রাখতে সহায়তা করে।

কন্ডিশনার ব্যবহার

হয়ত শুনে থাকবেন যে কন্ডিশনার চুল ভালো রাখে। কীভাবে রাখে তা অনেকেরই অজানা। শ্যাম্পু প্রতিদিনকার চুলের ময়লা ও ধূলাবালি দূর করে এবং কন্ডিশনার চুলে পুনরায় পুষ্টি যুগিয়ে স্বাস্থ্যকর ও উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।

ঠাণ্ডা পানি দিয়ে চুল ধোয়া

চুল পরিষ্কার করতে ঠাণ্ডা পানি ব্যবহার করুন। এটা চুলে দ্রুত পরিবর্তন আনে। শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করার পরে চুল ঠাণ্ডা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এটা চুলের আর্দ্রতা হারিয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করবে। পাশাপাশি চুলের কিউটিকেল ভালো রাখে। গরম পানি দিয়ে ধোয়া হলে তা চুল দুর্বল ও রুক্ষ করে ফেলে। তাই চুলে গরম পানির ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।

স্টাইলিং টুলস ব্যবহার না করা

হেয়ার স্টাইলিং টুলস যেগুলো তাপ প্রয়োগ করে যেমন- স্ট্রেইটনার, কার্লিং আয়রন ইত্যাদি। এগুলো চুলের ক্ষতি করে, দুর্বল ও ভঙ্গুর করে ফেলে। তাই এই ধরনের স্টাইলিনং যন্ত্র ব্যবহার বন্ধ করুন। আর যদি ব্যবহারের করতেই হয় তাহলে আগে তাপ নিরোধক প্রসাধনী ব্যবহার করে নিন।

নিয়মিত মাথার ত্বক ম্যাসাজ করুন

নানী-দাদীরা বলতেন না যে তেল দিলে চুল লম্বা হয়? আসলে কিন্তু তেলে চুল লম্বা হয় না, চুল লম্বা হয় তেল দেয়ার সময় মাথায় যে ম্যাসাজ করা পড়ে, ঠিক সেই কারণে। চুলের গোঁড়ায় ম্যাসাজ করলে এতে মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে, ফলে চুলের ফলিকল গুলো উদ্দীপিত হয়, চুল পড়া বন্ধ হয় এবং চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত হয়। সপ্তাহে কমপক্ষে দুদিন তেল দিয়ে ভালো করে চুলের গোঁড়ায় ম্যাসাজ করুন। তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। বাড়তি সুবিধা হিসাবে তেলের কারণে চুলে ডিপ কন্ডিশনিং-এর কাজটাও হয়ে যাবে। চুলে তেল দিতে না চাইলে কেবল আঙ্গুল দিয়েও নিজের মাথার ত্বক ম্যাসাজ করতে পারেন। বা চুলে শ্যাম্পু করার সময়েই ম্যাসাজের কাজ সেরে নিতে পারেন।

মহৌষধ ক্যাস্টর অয়েল

ক্যাস্টর অয়েল হচ্ছে চুল ঘন ও এর বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করার সবচাইতে দারুণ উপায়। ভিটামিন ই এবং প্রয়োজনীয় ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ এই তেলের কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। বরং চুল দ্রুত বড় করতে দারুণ ভূমিকা রাখে এই তেল। সমান সমান পরিমাণ ক্যাস্টর অয়েল ও নারিকেল তেল/অলিভ অয়েল/ বাদাম তেল ইত্যাদি পরস্পরের সাথে মিশিয়ে নিন রবং চুলের গোঁড়ায় ম্যাসাজ করে লাগান। ৩০-৩৫ মিনিট চুলে রাখুন, তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। সপ্তাহে কমপক্ষে দুবার করবেন। দুবার না পারলে কমপক্ষে একবার। স্ট্রেস কমাতে চাইলে যোগ করতে পারেন কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল।

একটি বিশেষ হেয়ার মাস্ক

চুলের বৃদ্ধি বাড়াতে ত্বরান্বিত করতে ডিমের কোন জুড়ি নেই। ডিমে আছে উচ্চ মাত্রার প্রোটিন এবং আয়রন, ফসফরাস, জিংক, সেলেনিয়াম, সালফার। একটি বা দুটি ডিম নিন চুলের দৈর্ঘ্য অনুযায়ী। সাথে যোগ করে এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল কয়েক চামচ। এই মিশ্রণ চুলে ম্যাসাজ করে লাগান। শুকিয়ে গেলে শ্যাম্পু করে ফেলুন। মাথায় খুশকি থাকলে যোগ করুন কয়েক চামচ লেবুর রস। ঘন কালো লম্বা চুলে বহুগুণে হেসে উঠুক আপনার সৌন্দর্য। ভালো থাকুন।

সূত্র- How to Make Your Hair Grow Faster top10homeremedies

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *